শিক্ষার্থীদের অনুদানের আবেদনের সময় বেড়েছে

করোনার সময়ে শিক্ষার্থীদের অনুদান নিয়ে যখন নানাবিধ গুজব ছড়াচ্ছে তখন এক বিজ্ঞপ্তিতে অনুদানের জন্য আবেদনের সময় বাড়ানোর কথা জানালো শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

সোমবার (৮ মার্চ) প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রোববার (৭ মার্চ) আবেদনের গ্রহণের শেষ দিন ছিল। কিন্তু কর্তৃপক্ষ আবেদনের সময় ১৫ মার্চ পর্যন্ত বৃদ্ধি করেছে। আবেদন যাচাই-বাছাই করে সীমিত সংখ্যক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে অনুদান দেওয়া হবে। আবেদন যাচাই-বাছাই করে সীমিত সংখ্যক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে অনুদান দেওয়া হবে। এ বিষয়ে কোনো ধরনের গুজবে কান না দেওয়ার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ।

এদিকে করোনা মহামারির সময়ে কিছু শিক্ষার্থীদের অনুদান নিয়ে নানাবিধ গুজব ছড়িয়েছে দেশজুড়ে। এমন অবস্থায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, কিছু শিক্ষার্থী ও প্রতিষ্ঠানকে করোনাকালীন অনুদান দেওয়া হবে তবে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে এ অনুদান দেওয়া হবে এমন তথ্য সম্পূর্ণ গুজব।

এর আগে শিক্ষার্থীদের ১০ হাজার করে টাকা দেবে সরকার- এমন খবর ছড়িয়ে পড়ায় টাঙ্গাইলের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হুমড়ি খেয়ে রেজিস্ট্রেশন করেন শিক্ষার্থীরা।

তবে সরকার কর্তৃক সব শিক্ষার্থীদের নির্ধারিত কোনো অঙ্কের টাকা দেওয়ার কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি জানিয়ে শিক্ষার্থীরা যাতে প্রতারিত না হন, সে ব্যাপারে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা লায়লা খানম দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।

১০ হাজার টাকা পাওয়ার ভিত্তিহীন খবর অনুযায়ী রোববার (৭ মার্চ) আবেদনের শেষ দিন। তাই টাঙ্গাইল কুমুদিনী সরকারি কলেজ, শেখ ফজিলাতুন্নেসা মহিলা কলেজসহ বিভিন্ন কলেজে ফরম পূরণে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে শিক্ষার্থীদের।

জেলার বিবেকানন্দ স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আনন্দ মোহন দে জানান, শিক্ষার্থীরা এসে প্রত্যয়নপত্র নিয়ে যাচ্ছে, আমরা দিচ্ছি। তবে, মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের কোনো নিদের্শনা দেওয়া হয়নি বলেও জানান তিনি।

জানা গেছে, বিভিন্ন প্রতারকচক্র অনলাইনে আবেদনের জন্য গুগল ডকে ফর্ম ফিলাপ করতে বলছে। সেখানে ব্যক্তিগত তথ্যসহ বিকাশ ও অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিংয়ের নম্বর ও পিনসহ গোপন তথ্য চাচ্ছে, যা সম্পূর্ণ প্রতারণা।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, শিক্ষক-কর্মচারী ও ছাত্রছাত্রীদের জন্য বিশেষ অনুদান বিষয়ে কাউকে ফোন দেওয়া হয়নি এবং জাতীয় পরিচয়পত্র, বিকাশ নম্বর ও গোপন পিন সংক্রান্ত কোনো তথ্যও চাওয়া হয়নি। এ বিষয়ে প্রতারক চক্র থেকে সতর্ক থাকার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) আওতাধীন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, শিক্ষক-কর্মচারী ও ছাত্রছাত্রীদের অনুদান প্রদানের গত ১৮ ফেব্রুয়ারি একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। ওই বিজ্ঞপ্তিতে টাকার পরিমাণ উল্লেখ করা হয়নি। এ ছাড়া সংশোধিত নীতিমালা অনুযায়ী সবাই আবেদনের যোগ্যও না।

Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *